Friday, 07.19.2019, 01:31am (GMT+6)
  Home
  FAQ
  RSS
  Links
  Site Map
  Contact
 
উন্মুক্ত জলাশয়গুলো আগের অবস্থায় ফিরিয়ে আনবে সরকার: প্রধানমন্ত্রী ; জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের ; পাবনার চাটমোহর হান্ডিয়ালে শিশু সন্তান চুরি ;পুলিশের বিশেষ অভিযানে গ্রেপ্তার -২ ; রিফাত হত্যাঃ মামলার তিন নং অসামি রিশান ফরাজী গ্রেফতার ; ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুরে সাপের কামড়ে ছাত্রের মৃত্যু
::| Keyword:       [Advance Search]
 
All News  
  শীর্ষ সংবাদ
  বিশেষ সংবাদ
  খেলার খবর
  ঢাকা
  ফরিদপুর
  গাজীপুর
  গোপালগঞ্জ
  জামালপুর
  কিশোরগঞ্জ
  মাদারীপুর
  মানিকগঞ্জ
  মুন্সীগঞ্জ
  ময়মনসিংহ
  নারায়ণগঞ্জ
  নরসিংদী
  নেত্রকোনা
  রাজবাড়ী
  শরীয়তপুর
  শেরপুর
  টাঙ্গাইল
  চট্টগ্রাম
  কক্সবাজার
  বান্দরবান
  খাগড়াছড়ি
  রাঙ্গামাটি
  কুমিল্লা
  চাঁদপুর
  ব্রাহ্মণবাড়ীয়া
  ফেনী
  নোয়াখালী
  লক্ষীপুর
  সিলেট
  হবিগঞ্জ
  সুনামগঞ্জ
  মৌলভীবাজার
  বরিশাল
  বরগুনা
  ভোলা
  ঝালকাঠি
  পটুয়াখালী
  পিরোজপুর
  খুলনা
  বাগেরহাট
  চুয়াডাঙ্গা
  যশোর
  কুষ্টিয়া
  মেহেরপুর
  মাগুরা
  নড়াইল
  সাতক্ষীরা
  ঝিনাইদহ
  রাজশাহী
  নাটোর
  চাঁপাইনবাবগঞ্জ
  বগুড়া
  নওগাঁ
  জয়পুরহাট
  সিরাজগঞ্জ
  পাবনা
  রংপুর
  দিনাজপুর
  গাইবান্ধা
  কুড়িগ্রাম
  লালমনিরহাট
  নীলফামারী
  পঞ্চগড়
  ঠাকুরগাঁও
  ::| Newsletter
Your Name:
Your Email:
 
 
 
কিশোরগঞ্জ
 
তাড়াইলে রথযাত্রার আনুষ্ঠানিকতা শুরু শেষ হবে উল্টোরথের মাধ্যমে
Thursday, 07.04.2019, 10:01pm (GMT+6)

মুকুট দাস মধু, তাড়াইল (কিশোরগঞ্জ): 

কিশোরগঞ্জের তাড়াইলে শ্রীশ্রী জগন্নাথ দেবের রথযাত্রা আনুষ্ঠানিকভাবে শুরু হয়েছে।

জানা যায়, আজ ২০ আষাঢ় ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ৪ জুলাই বৃহস্পতিবার বিকাল ৫ টায় উপজেলার সাচাইল গ্রামের শ্রীশ্রী রাধা গোবিন্দ মন্দির থেকে জগন্নাথ সুভদ্রা বলরামদেব সহকারে একটি সুসজ্জিত রথ নারী-পুরুষ ভক্তবৃন্দ সহকারে সদর বাজার হয়ে কেন্দ্রীয় শ্রীশ্রী কালী মন্দির প্রাঙ্গণে গিয়ে উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম থেকে আগত হিন্দু ভক্তগনের সাথে মিলিত হয়ে হরিনাম কীর্তন করেন।

ভক্তগণ সম্মিলিতভাবে কেন্দ্রীয় শ্রীশ্রী কালী মন্দির থেকে বিকেল ৫ টা ৩০ মিনিটে রথ শোভাযাত্রাসহ কালনার আখরায় কিছুক্ষণ নামকীর্তন শেষে সাচাইল রাধা গোবিন্দ মন্দিরে প্রসাদ বিতরণের মধ্য দিয়ে শেষ হয় সোজা রথযাত্রার আনুষ্ঠানিকতা।সাত দিন পর উল্টো রথযাত্রার মাধ্যমে শেষ হবে এ বছরের রথযাত্রার অনুষ্ঠান।

হিন্দু সণাতন সূত্রের তথ্যানুযায়ী মালবরাজ ইন্দ্রদুম্ন্য ছিলেন পরম বিষ্ণু ভক্ত। একদিন এক তেজস্বী সন্ন্যাসী তাঁর রাজবাড়ীতে পদার্পণ করলেন। দেব দ্বিজে ভক্তিপরায়ন রাজা ইন্দ্রদুম্ন্য পরম যত্নে সন্ন্যাসীর সেবা যত্ন করলেন। সন্ন্যাসী ভারতবর্ষের সমস্ত তীর্থের কথা বলে পুরুষোত্তম ক্ষেত্রের নীল পর্বতে ভগবান বিষ্ণুর পূজার কথা জানালেন। এখানে ভগবান বিষ্ণু গুপ্তভাবে শবর দের দ্বারা নীলমাধব রূপে পূজিত হচ্ছেন, নীলমাধব সাক্ষাত্‍ মুক্তিপ্রদায়ক, তিনি মোক্ষ প্রদান করেন।সন্ন্যাসীর কথা শুনে ভগবান বিষ্ণুর ভক্ত রাজা ইন্দ্রদুম্ন্য ভগবানের রূপ দর্শনে আকুল হলেন। রাজা তাঁর পুরোহিতের ভাই বিদ্যাপতিকে শবর দের রাজ্যে গিয়ে নীলমাধবের সন্ধান করে আনতে বললেন।

এরপর শবর দের দেশে এসে বিদ্যাপতি শবর দের রাজা বিশ্বাবসুর সাথে সাক্ষাত্‍ করলেন। শবর রাজা বিদ্যাপতিকে স্বাদর অভ্যর্থনা করে অতিথি চর্চার জন্য কন্যা ললিতাকে দায়িত্ব দেন। কিছুদিন থাকার পর বিদ্যাপতি শবর রাজা বিশ্বাবসুর কন্যা ললিতার প্রেমে পড়েন। উভয়ে উভয়কে ভালোবেসে ফেলেন। যার পরিণাম-স্বরূপ ললিতা অন্তঃসত্ত্বা হন। ললিতা এ কথা বিদ্যাপতিকে জানান এবং তাঁকে বিবাহ করতে বলেন। বিদ্যাপতি ললিতাকে এর বিনিময়ে নীলমাধব দর্শনের অভিপ্রায় জানান। ললিতা সে কথা শুনে বিচলিত হয় কিন্তু সে বলে এক সর্তে সে নীলমাধবকে দেখাতে পারে – বিদ্যাপতি যে পথে যাবেন সেই সময় তাঁর দুই চোখ সম্পূর্ণ বন্ধ করা হবে অর্থাত্‍ কাপড়ের পট্টি বাঁধা হবে যাতে তিনি রাস্তা না দেখতে পারেন কিম্বা চিনতে পারেন। বিদ্যাপতি রাজি হয়ে যান। কিন্তু বিদ্যাপতি একটি বুদ্ধি করেন, উনি সঙ্গে করে সরষে নিয়ে যান। হাতে এক মুঠো এক মুঠো করে সরষে নিয়ে সারা রাস্তা ফেলতে ফেলতে যান। এ’ সব কাজ ললিতার অগোচরেই সম্পন্ন হয়। বিদ্যাপতির উদ্দেশ্য ছিল নীলমাধবকে পুরীতে নিয়ে যাওয়া। সেই পথ চেনার জন্য উনি সরসের গাছ দেখতে দেখতে নীলমাধবের মন্দিরে পৌঁছন কিন্তু প্রভু নীলমাধব অন্তর্যামী বিদ্যাপতির হাতের নাগাল থেকে অন্তর্ধান হ’ন।
বিশ্ববসু কন্যা ললিতার মারফত্‍ বিদ্যাপতি নীলমাধব কে দর্শন লাভ করলেন বিশ্ববসুর অগোচরে। তারপর বিদ্যাপতি গিয়ে রাজাকে সব জানালেন। রাজা খবর পেয়ে সৈন্য সামন্ত নিয়ে নীলমাধবের দর্শনে আসলেন।
অবতার সম্পর্কে সুস্পষ্ট যথাযথ ধারনা ইন্দ্রদুম্ন্য পুরুষোত্তম ক্ষেত্রে এসে নীলমাধব দর্শন করতে গেলে শুনলেন নীলমাধব অন্তর্ধান হয়েছেন। মতান্তরে শবর রাজ বিশ্বাবসু সেটিকে লুকিয়ে রাখেন। রাজা ইন্দ্রদুম্ন্য এতে খুব দুঃখ পেয়ে ভাবলেন প্রভুর যখন দর্শন পেলাম না তখন এই জীবন রেখে কি লাভ? অনশনে প্রান ত্যাগ করাই শ্রেয় । এই ভেবে রাজা ইন্দ্রদুম্ন্য কুশ শয্যায় শয়ন করলেন। সে’ সময় দেবর্ষি নারদ মুনি জানালেন – “হে রাজন তোমার প্রাণত্যাগের প্রয়োজন নাই। এই স্থানে তোমার মাধ্যমে ভগবান জগন্নাথ দেব দারুব্রহ্ম রূপে পূজা পাবেন। স্বয়ং পিতা ব্রহ্মা একথা জানিয়েছেন।”
রাজা শুনে শান্তি পেলেন। এক রাতের কথা রাজা শয়নে ভগবান বিষ্ণুর স্বপ্ন পেলেন।
স্বপ্নে ভগবান শ্রীহরি বললেন – “হে রাজন । তুমি আমার প্রিয় ভক্ত। ভক্তদের থেকে আমি কদাপি দূর হই না। আমি সমুদ্রে ভাসতে ভাসতে তোমার নিকট আসছি। পুরীর বাঙ্কিমুহান নামক স্থানে তুমি আমাকে দারুব্রহ্ম রূপে পাবে।”
রাজা সেই স্থানে গিয়ে দারুব্রহ্মের সন্ধান পেলেন। কিন্তু তাকে একচুল ও নড়াতে পারলেন না । রাজা আদেশ দিলেন হাতী দিয়ে টানতে। সহস্র হাতী টেনেও সেই দারুব্রহ্ম কে এক চুলও নড়াতে পারলো না। রাজা আবার হতাশ হলেন।
সেই সময় ভগবান বিষ্ণু স্বপ্নে জানালেন – “হে রাজন। তুমি হতাশ হইও না। শবর রাজ বিশ্বাবসু আমার পরম ভক্ত। তুমি তাকে সসম্মানে এইস্থানে নিয়ে আসো। আর একটি স্বর্ণ রথ আনয়ন করো।”
রাজা সেই মতো কাজ করলেন। ভক্ত বিশ্বাবসু আসলেন। বিশ্বাবসু, বিদ্যাপতি আর রাজা তিনজনে মিলে দারুব্রহ্ম তুললেন। সেসময় চতুর্দিকে ভক্তেরা কীর্তন করতে লাগলো। তারপর দারুব্রহ্ম কে রথে বসিয়ে তিনজন নিয়ে এলেন।
প্রকাশ থাকে পুরীর দৈতাপতিরা ওই ব্রাহ্মণ বিদ্যাপতি এবং শবর কন্যা ললিতার বংশধর। তাই ওরা কেবল রথের সময় ভগবান জগন্নাথের সেবা করার অধিকার পান। রথে উপবিষ্ট প্রভু জগন্নাথ বলভদ্র মা সুভদ্রা এবং সুদর্শনের। এই বছরও নব-কলেবর যাত্রায় দৈতাপতিরা দারু অন্বেষণ এবং ব্রহ্ম পরিবর্তনের কাজ সমাপন করেছেন। এ ছাড়া ওনারা পুর্ব বিগ্রহদের পাতালিকরন কাজ সমাপন করেন ‘কোইলি বৈকুন্ঠে’ ।
গো হত্যা ও বেদ নিয়ে মিথ্যাচারের জবাব
রাজা ইন্দ্রদুম্ন্য সমুদ্রে প্রাপ্ত দারুব্রহ্ম প্রাপ্তির পর গুণ্ডিচা মন্দিরে মহাবেদী নির্মাণ করে যজ্ঞ করলেন। যজ্ঞ সমাপ্তে দেবর্ষি নারদ মুনির পরামর্শে রাজা সেই দারুব্রহ্ম বৃক্ষ কাটিয়ে জগন্নাথ, বলরাম ও সুভদ্রা দেবীর বিগ্রহ তৈরীতে মনোনিবেশ করলেন। এর জন্য অনেক ছুতোর কারিগর কে ডেকে পাঠানো হলো। কিন্তু বৃক্ষের গায়ে হাতুড়ী, ছেনি ইত্যাদি ঠেকানো মাত্রই যন্ত্র গুলি চূর্ণ হতে লাগলো। রাজা তো মহা সমস্যায় পড়লেন। সেসময় ছদ্দবেশে বিশ্বকর্মা মতান্তরে ভগবান বিষ্ণু এক ছুতোরের বেশে এসে মূর্তি তৈরীতে সম্মত হলেন।
তিনি এসে বললেন- “হে রাজন। আমার নাম অনন্ত মহারাণা। আমি মূর্তি গড়তে পারবো। আমাকে একটি বড় ঘর ও ২১ দিন সময় দিন। আমি তৈরী করবো একটি শর্তে। আমি ২১ দিন দরজা বন্ধ করে কাজ করবো। সেসময় এই ঘরে যেন কেউ না আসে। কেউ যেন দরজা না খোলে।”
অপর দিকে মোটা পারিশ্রামিকের লোভে যে ছুতোররা এসেছিলো তাদের নিরাশ করলেন না অনন্ত মহারাণা।
তিনি বললেন- “হে রাজন । আপনি ইতিপূর্বে যে সকল কারিগর কে এনেছেন, তাদের বলুন তিনটি রথ তৈরী করতে।”
ছদ্মবেশি বিশ্বকর্মা ঘরে ঢুকলে দরজা বাইরে থেকে বন্ধ করে সেখানে কড়া প্রহরা বসানো হোলো যাতে কাক-পক্ষীও ভেতরে না যেতে পারে। ভেতরে কাজ চলতে লাগলো। কিন্তু রানী গুণ্ডিচার মন মানে না। স্বভাবে নারীজাতির মন চঞ্চলা হয়। রানী গুন্ডিচা ভাবলেন – “আহা কেমনই বা কারিগর বদ্ধ ঘরে মূর্তি গড়ছেন। কেমন বা নির্মিত হচ্ছে শ্রীবিষ্ণুর বিগ্রহ। একবার দেখেই আসি না। একবার দেখলে বোধ হয় কারিগর অসন্তুষ্ট হবেন না।”
এই ভেবে মহারানী ১৪ দিনের মাথায় মতান্তরে ৯ দিনের মাথায় দরজা খুলে দিলেন। কারিগর ক্রুদ্ধ হয়ে অদৃশ্য হোলো। অসম্পূর্ণ জগন্নাথ, বলভদ্র ও সুভদ্রা দেবীর মূর্তি দেখে রানী ভিরমি খেলেন। একি মূর্তি! নীল নবঘন শ্যামল শ্রীবিষ্ণুর এমন গোলাকৃতি নয়ন, হস্ত পদ হীন, কালো মেঘের মতো গাত্র বর্ণ দেখে মহারানীর মাথা ঘুরতে লাগলো।
রাজার কানে খবর গেলো। রাজা এসে রানীকে খুব তিরস্কার করলেন। বদ্ধ ঘরের মধ্য থেকে এক কারিগরের অদৃশ্য হয়ে যাওয়ায় বিচক্ষণ মন্ত্রী জানালেন তিনি সাধারন মানব না কোনো দেবতা হবেন। বিষ্ণু ভক্ত রাজা ইন্দ্রদুম্ন্য তাঁর আরাধ্য হরির এই রূপ দেখে দুঃখিত হলেন। রাজাকে সেই রাত্রে ভগবান বিষ্ণু আবার স্বপ্ন দিলেন।
বললেন – “আমার ইচ্ছায় দেবশিল্পী মূর্তি নির্মাণ করতে এসেছিলেন। কিন্তু শর্ত ভঙ্গ হওয়াতে এই রূপ মূর্তি গঠিত হয়েছে। হে রাজন, তুমি আমার পরম ভক্ত, আমি এই অসম্পূর্ণ মূর্তিতেই তোমার পূজা নেবো। আমি দারুব্রহ্ম রূপে পুরুষোত্তম ক্ষেত্রে নিত্য অবস্থান করবো। আমি প্রাকৃত হস্তপদ রহিত, কিন্তু অপ্রাকৃত হস্তপদাদির দ্বারা ভক্তের সেবাপূজা শ্রদ্ধা গ্রহণ করবো। আমি ত্রিভুবনে সর্বত্র বিচরণ করি। লীলা মাধুর্য প্রকাশের জন্য আমি এখানে এইরূপে অধিষ্ঠান করবো। শোনো নরেশ – ভক্তেরা আমার এই রূপেই মুরলীধর শ্রীকৃষ্ণ রূপের দর্শন পাবেন। যদি তুমি ইচ্ছা করো তবে ঐশ্বর্য দ্বারা সোনা রূপার হস্ত পদাদি নির্মিত করে আমার সেবা করতে পারো। ” সেইথেকে উল্টো রথের পর একাদশীর দিন তিন ঠাকুরের সুবর্ণ-বেশ রথের ওপর হয়। সেই বেশ দেখলে সাত জন্মের পাপ ক্ষয় হয় যা দেখতে লক্ষ লক্ষ ভক্ত পুরী আসেন প্রত্যেক বত্‍সর।
পরে দেখা গেল যে ভগবান বিষ্ণু তাঁর পরম ভক্ত রাজা ইন্দ্রদুম্ন্য কে স্বপ্নে সান্ত্বনা দিচ্ছেন এই বলে যে তিনি সেই হস্তপদ রহিত বিকট মূর্তিতেই পূজা নেবেন। সেই স্বপ্ন পর্ব তখনো চলছে। ভক্ত ও ভগবানের মধ্যে যে ভক্তির সম্বন্ধ তা একে একে উঠে আসছে। নিদ্রিত অবস্থায় স্বপ্নে রাজা তখনও সেই ছদ্দবেশী অনন্ত মহারানার জন্য প্রার্থনা জানিয়ে বলছেন – “হে প্রভু জনার্দন, যে বৃদ্ধ কারিগরকে দিয়ে তুমি তোমার এই মূর্তি নির্মিত করিয়াছ – আমার অভিলাষ এই যে সেই কারিগরের বংশধরেরাই যেনো তোমার সেবায় রথ যুগ যুগ ধরে প্রস্তুত করিতে পারে।” ভগবান নারায়ন তাঁর ভক্তদের খুবুই স্নেহ করেন। তাই ভগবান একে একে রাজার ইচ্ছা পূর্ণ করতে লাগলেন। এরপর ভগবান বিষ্ণু বললেন – “হে রাজন। আমার আর এক পরম ভক্ত শবর রাজ বিশ্বাবসু আমাকে নীলমাধব রূপে পূজা করতো- তাঁরই বংশধরেরা আমার সেবক রূপে যুগ যুগ ধরে সেবা করবে । বিদ্যাপতির প্রথম স্ত্রীর সন্তান গন আমার পূজারী হবে। আর বিদ্যাপতির দ্বিতীয়া স্ত্রী তথা বিশ্বাবসুর পুত্রী ললিতার সন্তান এর বংশধরেরা আমার ভোগ রান্নার দায়িত্ব নেবে। আমি তাদের হাতেই সেবা নেবো।”
বিদ্যাপতি প্রথম রাজার আদেশে নীলমাধব সন্ধান করতে গেছিলেন শবর দের দেশে, শবর বা সাঁওতাল যাদের আমরা ছোটো জাত বলে দূর দূর করি – শ্রীভগবান বিষ্ণু প্রথম তাঁদের দ্বারাই পূজা নিলেন। অপরদিকে তিনি তাঁদের হাতে সেবার আদেশ দিলেন। ব্রাহ্মণ ও শূদ্র জাতির একত্র মেলবন্ধন ঘটালেন স্বয়ং ভগবান। সেজন্যই বলে পুরীতে জাতি বিচার নেই। জগতের নাথ জগন্নাথ সবার। বিদ্যাপতি শবর দেশে নীলমাধবের সন্ধান করতে গিয়ে বিশ্বাবসুর দুহিতা ললিতার সাথে ভালোবাসা ও বিবাহ করেছিলেন। আর বিদ্যাপতিকে শবর দেশে পৌছানোর জন্য এক রাখাল বালক বারবার পথ প্রদর্শন করেছিলেন। সেই রাখাল বালক আর কেউ নয় স্বয়ং বৃন্দাবনের ‘রাখালরাজা নন্দদুলাল’। ইন্দ্রদুম্ন্য স্বপ্নে ভগবান বিষ্ণুর কাছে প্রতিশ্রুতি দিলেন – “হে মধূসুদন, প্রতিদিন মাত্র এক প্রহর অর্থাত্‍ তিন ঘণ্টার জন্য মন্দিরের দ্বার বন্ধ থাকবে, বাকী সময় মন্দিরের দ্বার অবারিত থাকবে, যাতে তোমার সন্তান ভক্তেরা তোমার দর্শন লাভ করে। সারাদিন আপনার ভোজোন চলবে। আপনার হাত কদাপি শুস্ক থাকবে না।”
ভগবান বিষ্ণু রাজাকে তাই বর দিলেন। এবার ভগবান ভক্তের পরীক্ষা নিলেন – তিনি বললেন – “এবার নিজের জন্য কিছু প্রার্থনা করো, তুমি আমার ভক্ত।”
প্রকৃত ভক্তেরা নিস্কাম, তাই কোনো প্রকার সুখ ঐশ্বর্য তারা চান না।
রাজা একটি ভয়ানক বর চেয়ে বললেন – “প্রভু আমাকে এই বর দিন আমি যেন নির্বংশ হই, যাতে আমার বংশধরের কেউ যেন আপনার দেবালয়কে নিজ সম্পত্তি দাবী না করতে পারে।”
ভগবান হরি তাই বর দিলেন। জগন্নাথ মন্দিরে প্রান প্রতিষ্ঠা করেছিলেন প্রজাপতি ব্রহ্মা।
রথ যাত্রার ইতিহাস সম্পর্কে এইটাই গল্প….
জগন্নাথের প্রধান উত্‍‌সব হল রথযাত্রা। কিংবদন্তি অনুসারে বলা হয়- আষাঢ় মাসের শুক্লা দ্বিতীয়া তিথিতে জগন্নাথ-সুভদ্রা-বলরাম রথে চড়ে রাজা ইন্দ্রদ্যুম্নের পত্নী গুণ্ডিচার বাড়ি যান (সেটাকে বলা হয় জগন্নাথের ‘মাসির বাড়ি’) এবং সাত দিন পরে সেখান থেকে আবার নিজের মন্দিরে ফিরে আসেন। স্থানীয় ভাবে এটি মাসির বাড়ি যাওয়া নামে পরিচিত! রথে চড়ে ওই গমন ও প্রত্যাগমনকে (সোজা)রথ ও (উল্টো)রথ বলা হয়। ‘রথযাত্রা’ আবার পতিতপাবনযাত্রা, নবযাত্রা, গুণ্ডিচাযাত্রা, মহাবেদীযাত্রা, নন্দীঘোষযাত্রা নামেও পরিচিত।


Comments (0)        Print        Tell friend        Top


Other Articles:
কিশোরগঞ্জে হত্যা মামলায় ৩ জনের মৃত্যুদণ্ড, ৭ জনের যাবজ্জীবন (06.19.2019)
নার্স হত্যা : সড়ক অবরোধ করে হাজারো মানুষের বিক্ষোভ (05.10.2019)
পাকুন্দিয়ায় বজ্রাঘাতে এক কৃষক নিহত, আহত এক (03.28.2019)
কিশোরগঞ্জে ট্রাক্টরচাপায় অটোরিকশার ২ যাত্রী নিহত (02.19.2019)
কিশোরগঞ্জে বাসচাপায় প্রাণ গেল ৩ কিশোর বন্ধুর (12.16.2018)
কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচরে বিএনপির নির্বাচনী পথসভায় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা হামলা (12.13.2018)
কিশোরগঞ্জ-২: মেজর (অব.) আখতার ও নূরের হাড্ডাহাড্ডি লড়াই (12.07.2018)
কিশোরগঞ্জে স্বামীর মোটরসাইকেল থেকে পড়ে বাস চাপায় তরুণী নিহত (11.24.2018)
পাকুন্দিয়ায় মা-স্ত্রীকে খুনের ঘটনায় বৃদ্ধের মৃত্যুদণ্ড (11.15.2018)
একই আসনে মনোনয়ন ফরম কিনেছেন সৈয়দ আশরাফ ও তার ভাই (11.09.2018)



 
  ::| Events
July 2019  
Su Mo Tu We Th Fr Sa
  1 2 3 4 5 6
7 8 9 10 11 12 13
14 15 16 17 18 19 20
21 22 23 24 25 26 27
28 29 30 31      
 
::| Hot News
পুলিশ জনগনের বন্ধু…অনির্বাণ চৌধুরী
তাড়াইলে রথযাত্রার আনুষ্ঠানিকতা শুরু শেষ হবে উল্টোরথের মাধ্যমে
কিশোরগঞ্জে হত্যা মামলায় ৩ জনের মৃত্যুদণ্ড, ৭ জনের যাবজ্জীবন
নার্স হত্যা : সড়ক অবরোধ করে হাজারো মানুষের বিক্ষোভ
পাকুন্দিয়ায় বজ্রাঘাতে এক কৃষক নিহত, আহত এক
কিশোরগঞ্জে ট্রাক্টরচাপায় অটোরিকশার ২ যাত্রী নিহত
কিশোরগঞ্জে বাসচাপায় প্রাণ গেল ৩ কিশোর বন্ধুর
কিশোরগঞ্জের কুলিয়ারচরে বিএনপির নির্বাচনী পথসভায় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা হামলা
কিশোরগঞ্জ-২: মেজর (অব.) আখতার ও নূরের হাড্ডাহাড্ডি লড়াই
কিশোরগঞ্জে স্বামীর মোটরসাইকেল থেকে পড়ে বাস চাপায় তরুণী নিহত

বিডি নিউজ(BD News) প্রাইভেট লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান
[Top Page]