Friday, 07.19.2019, 01:38am (GMT+6)
  Home
  FAQ
  RSS
  Links
  Site Map
  Contact
 
উন্মুক্ত জলাশয়গুলো আগের অবস্থায় ফিরিয়ে আনবে সরকার: প্রধানমন্ত্রী ; জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জিএম কাদের ; পাবনার চাটমোহর হান্ডিয়ালে শিশু সন্তান চুরি ;পুলিশের বিশেষ অভিযানে গ্রেপ্তার -২ ; রিফাত হত্যাঃ মামলার তিন নং অসামি রিশান ফরাজী গ্রেফতার ; ঠাকুরগাঁওয়ের হরিপুরে সাপের কামড়ে ছাত্রের মৃত্যু
::| Keyword:       [Advance Search]
 
All News  
  শীর্ষ সংবাদ
  বিশেষ সংবাদ
  খেলার খবর
  ঢাকা
  ফরিদপুর
  গাজীপুর
  গোপালগঞ্জ
  জামালপুর
  কিশোরগঞ্জ
  মাদারীপুর
  মানিকগঞ্জ
  মুন্সীগঞ্জ
  ময়মনসিংহ
  নারায়ণগঞ্জ
  নরসিংদী
  নেত্রকোনা
  রাজবাড়ী
  শরীয়তপুর
  শেরপুর
  টাঙ্গাইল
  চট্টগ্রাম
  কক্সবাজার
  বান্দরবান
  খাগড়াছড়ি
  রাঙ্গামাটি
  কুমিল্লা
  চাঁদপুর
  ব্রাহ্মণবাড়ীয়া
  ফেনী
  নোয়াখালী
  লক্ষীপুর
  সিলেট
  হবিগঞ্জ
  সুনামগঞ্জ
  মৌলভীবাজার
  বরিশাল
  বরগুনা
  ভোলা
  ঝালকাঠি
  পটুয়াখালী
  পিরোজপুর
  খুলনা
  বাগেরহাট
  চুয়াডাঙ্গা
  যশোর
  কুষ্টিয়া
  মেহেরপুর
  মাগুরা
  নড়াইল
  সাতক্ষীরা
  ঝিনাইদহ
  রাজশাহী
  নাটোর
  চাঁপাইনবাবগঞ্জ
  বগুড়া
  নওগাঁ
  জয়পুরহাট
  সিরাজগঞ্জ
  পাবনা
  রংপুর
  দিনাজপুর
  গাইবান্ধা
  কুড়িগ্রাম
  লালমনিরহাট
  নীলফামারী
  পঞ্চগড়
  ঠাকুরগাঁও
  ::| Newsletter
Your Name:
Your Email:
 
 
 
কক্সবাজার
 
পাহাড়ধস আতংকে দেড়লাখ রোহিঙ্গা, পাঁচদিনে ৩ জনের মৃত্যু
Tuesday, 07.09.2019, 09:30pm (GMT+6)

ডিএন২৪ ডেস্ক: কয়েকদিনের টানা বৃষ্টিতে কক্সবাজারের উখিয়া-টেকনাফের ৩৪টি আশ্রয় শিবিরের ২৫ হাজার পরিবারের প্রায় দেড়লাখ রোহিঙ্গা দিন কাটাচ্ছেন পাহাড়ধস ও বন্যার ঝুঁকি আতংকে। গত পাঁচদিনে মৃত্যু হয়েছে শিশুসহ তিনজনের। ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে ৩ হাজারের বেশি বসতঘর।

আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা আইওএম এর হিসাব মতে, পাঁচদিনের ভারী বর্ষণ এবং ঝড়ো হাওয়ায় উখিয়া-টেকনাফে ভূমিধসে এক হাজার ১৮৬টি, বন্যায় ২১৬টি এবং ঝড়ো হাওয়ায় এক হাজার ৮৪০টি বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। এতে ক্ষতির মুখে পড়েছেন ১৫ হাজার ৫৩৪ জন রোহিঙ্গা। এছাড়াও ক্যাম্পগুলোতে ৩৯১টি ভূমিধসের ঘটনা ঘটেছে এবং ঝড়ো হাওয়া বয়ে গেছে ৫১ বার। ক্ষয়ক্ষতির প্রাথমিক পরিমাণ এরইমধ্যে ২০১৮ সালের ক্ষয়ক্ষতি ছাড়িয়েছে।

গত ৩ থেকে ৫ জুলাই পর্যন্ত সময়ে ৫১০ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে কুতুপালং মেঘা রোহিঙ্গা ক্যাম্পে। আরেকটি বড় ক্যাম্প, ‘ক্যাম্প ১৬’তে বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হয়েছে ৫৩০ মিলিমিটার। পাঁচদিনের এই প্রবল বৃষ্টি এবং ঝড়ো হাওয়ার কারণে প্রায় তিনহাজার রোহিঙ্গা তাদের আশ্রয়স্থল হারিয়েছেন।

উখিয়া থানা পুলিশ জানায়, ভূমিধসে নিহতরা হলেন কুতুপালং ২ নম্বর ক্যাম্পের ব্লক ডি এর মৃত আবু বক্করের স্ত্রী মোস্তফা খাতুন (৫০), উখিয়া হাকিমপাড়া ক্যাম্পের মোহাম্মদ হামিম (৮) ও মধুরছড়া ক্যাম্পের বাসিন্দা মোহাম্মদ ইব্রাহীম (৭)। তিনজনের মৃত্যু ছাড়াও বিভিন্নভাবে আহত হয়েছেন আরো অন্তত ২০ জন।

এসব তথ্যের সত্যতা নিশ্চিত করে আরাকান রোহিঙ্গা সোসাইটি ফর পিস অ্যান্ড হিউম্যান রাইটসের সেক্রেটারি ছৈয়দ উল্লাহ বাংলানিউজকে বলেন, প্রায় সবগুলো রোহিঙ্গা ক্যাম্পই পাহাড়ি এলাকায়। আর বেশিরভাগ বাড়ি-ঘর করা হয়েছে পাহাড় কেটে। যে কারণে বৃষ্টি শুরু হলেই রোহিঙ্গারা আতংকিত হয়ে পড়েন।

শরণার্থী শিবিরে ক্ষয়ক্ষতির কথা স্বীকার করে কক্সবাজার শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনার মোহাম্মদ আবুল কালাম বাংলানিউজকে বলেন, গত বর্ষায় বেশি ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় বসবাসরতদের মধ্যে থেকে আমরা এরইমধ্যে ১৫ হাজার পরিবারের ৫০ হাজার বাসিন্দাকে নিরাপদ স্থানে সরিয়ে নিয়েছি। আরো প্রায় সাড়ে চার হাজার পরিবার আছে রাস্তাঘাটে চলাচল সমস্যা এবং পাহাড়ধসের অতিমাত্রায় ঝুঁকিতে রয়েছে। এদের তালিকা তৈরি এবং অন্যত্র সরানোর পরিকল্পনা চলছে।

তিনি বলেন, যেহেতু রোহিঙ্গা বসতিগুলো পাহাড়ি এলাকায়, তাই ভারী বর্ষণ হলেই সেখানে ভূমিধসের ঘটনা ঘটে। যে কারণে কিছুটা ঝুঁকি থাকেই। এ ধরনের সমস্যা থেকে শতভাগ উত্তরণ আসলেই সম্ভব নয়। তবে এই বর্ষায় প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলায় সব ধরনের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে।

কক্সবাজার জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন) মো. ইকবাল হোসেন বলেন, সর্বশেষ গত এক সপ্তাহে তিনজনের মৃত্যুসহ রোহিঙ্গারা এখানে আশ্রয় নেওয়ার পর থেকে পাহাড়ধস, মাটিচাপা, গাছ পড়ে ২৪ জনের মৃত্যু হয়েছে।

তিনি বলেন, ক্যাম্পে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষার পাশাপাশি প্রাকৃতিক দুর্যোগে যাতে প্রাণহানি না ঘটে সেজন্য কাজ করছে পুলিশ।

সীমাহীন দুর্ভোগে রোহিঙ্গারা

উখিয়ার কুতুপালং ৪ নম্বর ক্যাম্পের প্রধান মাঝি মো. আব্দুর রহিম বলেন, আমার আওতাধীন ৩ হাজার ২০০ পরিবার আছে। টানা বর্ষণের কারণে পাহাড়ধসে ১০টি ঘর সম্পূর্ণ ভেঙে গেছে। আরো অন্তত একশ’ পরিবার আছে পাহাড়ধস এবং বন্যার ঝুঁকিতে। তারা এখন নির্ঘুম রাত কাটাচ্ছেন। বাকি সব বাড়িঘরের ত্রিপলের ছাউনি নষ্ট হয়ে গেছে। বৃষ্টি হলেই পানিতে ঘর ভিজে যায়। যে কারণে সবাই কম বেশি দুর্ভোগে আছেন।

একই ক্যাম্পের সি ব্লকের মাহমুদুল হাসান বলেন, গত রোববার বৃষ্টির সময় পাহাড়ধসে আমার ঘর সম্পূর্ণ ভেঙে গেছে। এখন বউ-বাচ্চা নিয়ে মানবেতর দিন কাটাচ্ছি।

আরাকান রোহিঙ্গা সোসাইটি ফর পিস অ্যান্ড হিউম্যান রাইটসের চেয়ারম্যান মুহিব উল্লাহ বাংলানিউজকে বলেন, তবলেন, মধুরছড়া, জামতলী, লম্বাশিয়া, বালুখালী, থাইনখালী, হাকিমপাড়া, ময়নারঘোনাসহ উখিয়া-টেকনাফের ৩৪টি রোহিঙ্গা ক্যাম্পে শুরু থেকে এই পর্যন্ত রোহিঙ্গাদের বসবাসের জন্য প্রায় ২ লাখ ১৩ হাজার ঝুঁপড়ি ঘর তৈরি করা হয়েছে। এসবের মধ্যে ১৭ নম্বর ক্যাম্পের প্রায় সাতশ’ ঘর আছে ছনের ছাউনির। বৃষ্টিতে এগুলোর সবকটির ছাউনি নষ্ট হয়ে গেছে। আর বাকিসব ঘরের তিনভাগের দুইভাগ ঘরের ত্রিপলের ছাউনী নষ্ট হয়ে এখন মানবেতর জীবন যাপন করছেন এর বাসিন্দারা।

বর্ষণে পানিতে তলিয়ে গেছে ঘুমধুম নো-ম্যানস ল্যান্ড শরণার্থী শিবির

টানা কয়েকদিনের বর্ষণে বৃষ্টির পানি এবং তুমব্রু খাল দিয়ে উপর থেকে নেমে আসা বানের পানিতে তলিয়ে গেছে বান্দরবানের নাইক্ষ্যংছড়ির ঘুমধুম কোণারপাড়ার শূণ্যরেখার শরণার্থী শিবির। ফলে এখানে চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন প্রায় পাঁচ হাজার নারী-পুরুষ ও শিশু।

কোণারপাড়া শরণার্থী শিবিরের মাঝি দিল মোহাম্মদ বলেন, প্রবল বৃষ্টির পানির সঙ্গে পাহাড়ি ঢল নেমে আসায় তুমব্রু কোণারপাড়া রোহিঙ্গা শিবিরটি প্রায় এক সপ্তাহ ধরে পানিতে তলিয়ে আছে। ফলে বসবাসরত প্রায় পাঁচ হাজার রোহিঙ্গা চরম দুর্ভোগের মধ্যে মানবেতর জীবন যাপন করছেন। বর্তমানে এখানে খাদ্য এবং খাবার পানির সংকটও দেখা দিয়েছে।

ঘুমধুম ইউপি চেয়ারম্যান একে জাহাঙ্গীর আজিজ জানান, এখানে প্রাণহানীর ঘটনা না ঘটলেও আবাসন নিয়ে রোহিঙ্গারা দুর্ভোগে পড়েছেন।

উখিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) মো. নিকারুজ্জামান চৌধুরী বেনারকে বলেন, ভারী বর্ষণের কারণে পাহাড়ধস, ভূমিধসের ঘটনা ঘটতে পারে। এজন্য প্রতিটি ক্যাম্পে মাঝিদের মাধ্যমে রোহিঙ্গাদের সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে। আর যারা অতি ঝূঁকিপূর্ণভাবে এখনো বসবাস করছেন, মাঝিদের মাধ্যমে তাদের আপাতত নিরাপদ স্থানে এসে আশ্রয় নেওয়ার জন্য বলা হয়েছে।

যেকোনো প্রাকৃতিক দুর্যোগ মোকাবিলায় ক্যাম্পের ভেতরে থাকা মসজিদ, সাইক্লোন শেল্টার, আশপাশের স্কুলের ভবন প্রস্তুত রাখা হয়েছে, যোগ করেন তিনি।


Comments (0)        Print        Tell friend        Top


Other Articles:
চকরিয়ায় বিয়ের প্রস্তাবে মেয়ে রাজি না হওয়ায় মাকে গলা কেটে হত্যা (07.09.2019)
প্লিজ, একটু অপেক্ষা করুন! জলাবদ্ধতা থাকবে না- চকরিয়া পৌর মেয়র (07.07.2019)
চকরিয়ায় স্বামীর বসতবাড়িতে গৃহবধুর মৃত্যুর ঘটনা অবশেষে রহস্য উদঘাটন (07.07.2019)
বদরখালী বাজারের হোসেন ডেন্টাল কেয়ারের মালিক আলমগীর আর নেই (07.06.2019)
চকরিয়া উপকূলীয় বেঁড়িবাধ পরিদর্শন করেন ইউএনও শিবলী নোমান (07.06.2019)
চকরিয়ায় বিদ্যুৎস্পৃষ্টে নির্মাণ শ্রমিক নিহত (07.06.2019)
চকরিয়ায় হামিদ হত্যা মামলার প্রধান আসামীসহ ২ ডাকাত গ্রেপ্তার, অস্ত্র ও গুলি উদ্ধার (07.04.2019)
চকরিয়ায় ১ কোটি ২২ লাখ ৮৫০২১ টাকা ভূমি উন্নয়ন কর আদায় (07.04.2019)
চকরিয়া পৌরসদরে এক কিশোরকে অমানষিক নির্যাতন (07.03.2019)
মাদক মামলার পলাতক আসামি টেকনাফে ‘বন্দুকযুদ্ধে’ নিহত (07.03.2019)



 
  ::| Events
July 2019  
Su Mo Tu We Th Fr Sa
  1 2 3 4 5 6
7 8 9 10 11 12 13
14 15 16 17 18 19 20
21 22 23 24 25 26 27
28 29 30 31      
 
::| Hot News
চকরিয়ার এক হাজ্বীর সৌদি আরবে মৃত্যু
লাইটিং কাজ শেষ হলেই চকরিয়া পৌর এলাকার চিত্র পাল্টে যাবে
চকরিয়া রাস্তা পারাপারে বন্যার পানির স্রোতে যুবক নিখোঁজ
চকরিয়ায় বমুবিলছড়িতে পাহাড় ধসে স্বামী-স্ত্রী নিহত
আধুনিক চিকিৎসার প্রাণকেন্দ্র চকরিয়ার শেভরণ
চকরিয়া-পেকুয়ার ১৯ অসুস্থ ব্যক্তিকে প্রধানমন্ত্রীর তহবিলের ১৭ লক্ষ ৬০ হাজার টাকার অনুদান
চকরিয়ায় ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানে দুই ব্যবসায়ীকে ১০ হাজার টাকা জরিমানা
ফাঁসিয়াখালী ইউপির উপ-নির্বাচনে প্রতীক বরাদ্দ
দৈনিক হিমছড়ি সম্পাদক হাসানুর রশীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করতে হবে
চকরিয়ার দুই ইউপি উপ-নির্বাচনে চেয়ারম্যান ও মেম্বার পদে ১২ প্রার্থীর প্রার্থীতা বহাল

বিডি নিউজ(BD News) প্রাইভেট লিমিটেডের একটি প্রতিষ্ঠান
[Top Page]